নেত্রকোণার আাটপাড়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলন : কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক

আব্দুর রহমান আব্দুর রহমান

নেত্রকোনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২:৫৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০১৯

নেত্রকোনা জেলার আটপাড়া উপজেলায় এ বছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকের মুখে দেখা দিয়েছে হাসির ঝিলিক। আটপাড়া উপজেলা পরিসংখ্যান অফিস সূত্রে জানা যায়, ১৯২ বর্গ কিলোমিটার জায়গা নিয়ে আটপাড়া উপজেলা অবস্থিত। উপজেলায় ভূমির ব্যবহার অনুযায়ী কৃষি জমির পরিমাণ ৩৭ হাজার ৪ শত ৫৩ একর। এ অ লের প্রায় ৮০ ভাগ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী, চলতি আমন মওসুমে উপজেলায় আমন আবাদের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়, উফশী ৭ হাজার ৬ শত ৮১ হেক্টর, স্থানীয় জাতের ১ হাজার ৬ শত ৩০ হেক্টর এবং হাইব্রিড জাতের ৯০ হেক্টরসহ মোট ৯ হাজার ৪ শত হেক্টর জমি। শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত জমিতে আমন আবাদ করা হয়।

- Advertisement -

সময় মতো ধানের ছাড়া রোপন, সঠিক পরিচর্যা, সার ও কীটনাশক বিতরণ এবং আবহওয়া অনুকুলে থাকায় চলতি বছর আটপাড়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষকের মুখে দেখা দিয়েছে হাসির ঝিলিক। অগ্রহায়ণের প্রথম সপ্তাহ থেকেই এ অ লের কৃষকরা আমন ধান কাটা শুরু করেছে।

স্বল্প শুনই গ্রামের কৃষক হামিদুর রহমান জানান, এবার আবহওয়া অনুকূলে থাকায় ও সময় মত বৃষ্টি হওয়ায় হাইব্রীড ধানী গোল্ড ৭০০৬, এগ্রো ধান ১২, উফশী বিনা ৭, ব্রি-৩২, ৩৪, ৪৯, ৫২, ৮৭ ধান এবং স্থানীয় জাত বিরই, নাতিশাইল, বদ্বিরাজ ধানের ফলন ভাল হয়েছে। সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, আমন ধানের বাম্পার ফলন হলেও বাজারে ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় তারা অনেকটাই হতাশ। স্বরমুশিয়া গ্রামের কৃষক আনোয়ার হোসেন চ ল ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কৃষকরা মাথার ঘাঁম পায়ে ফেলে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে ফসল ফলায়। কিন্তু তারা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য পায় না। সরকার সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান না কেনায় এক শ্রেণির মধ্যস্বত্বভোগী সিন্ডিকেট বেশী লাভবান হচ্ছে। হাতিয়া তারাচাপুর গ্রামের ইদি আমিন বলেন, গ্রাম্য মহাজনদের কাছ থেকে চড়া সুদে ধার দেনা করে আমি ১৮ কাটা জমিতে আমন আবাদ করেছি। ফলন ভাল হলেও বাজারে ধানের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় কি ভাবে ধার দেনা পরিশোধ করবো ভেবে পাচ্ছি না। দেওগাঁও গ্রামের কৃষক সঞ্জুর রহমান জানান, গ্রামা লে ধান কাটা শ্রমিকের অভাব দেখা দেয়ায় অধিক মজুরি দিয়ে ধান কাটাতে হচ্ছে। বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে দেখা যায়, এবার ব্রি-৩২ ধান ৪৮০/৫০০ টাকায়, ব্রি-৪৯ ধান ৫৬০/৫৮০টাকায় এবং বিনা-৭ ধান ৫৮০/৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আটপাড়া উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ মাসুদুর রহমান আমন ধানের বাম্পার ফলনের কথা স্বীকার করে বলেন, আবহাওয়া অনুকুলে থাকায়, সময় মতো সুষম সার ও কিটনাশক প্রয়োগের ফলে রোগ বালাইয়ের প্রকোপ না দেখা দেয়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কৃষকরা যাতে ন্যায্য মূল্যে আমন ধান বিক্রি করতে পারেন তার জন্য সরকার কৃষি অফিসকে কৃষকদের তালিকা তৈরীর নির্দেশ দিয়েছেন। সেই মোতাবেক তালিকা তৈরী করে উপজেলা কৃষি অফিসের ওয়েবসাইডে প্রকাশ করা হয়েছে। কৃষকরা যাতে ধান বিক্রয়ে কোন প্রকার হয়রানির শিকার না হন তার জন্য কৃষি অফিস তৎপর রয়েছে।