সিলেটে সীমান্ত নদীসহ সুরমা-কুশিয়ারার পানি কমছে

হিমেল আহমেদ হিমেল আহমেদ

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ৬:২৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০
সিলেটে সুরমা-কুশিয়ারাসহ সীমান্ত নদ-নদীর পানি কমছে। বৃহস্পতিবার সকাল ও দুপুর এবং বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পানির পরিমাপ থেকে এ তথ্য জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।
সিলেটের প্রধান দুই নদী সুরমা ও কুশিয়ারার পানি পরিমাপ করা হয় ছয়টি পয়েন্টে। এর মধ্যে সুরমা নদীর কানাইঘাট পয়েন্ট ও কুশিয়ারার ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপরে থাকলেও সেখানে পানি কমেছে। বাকি চারটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার নিচে রয়েছে।

 

- Advertisement -

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ও দুপুর ১২টায় পাউবোর ডেইলি ওয়াটার লেভেল ডেটার তথ্যে বলা হয়, সুরমা নদীর সিলেট শহর পয়েন্ট দিয়ে পানি বিপৎসীমা (১০ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার) থেকে নেমে গেছে। সেখানে বুধবার সন্ধ্যায় পানি ১০ দশমিক ৮২ সেন্টিমিটার থেকে নেমে ১০ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হয়। বুধবার সন্ধ্যায় কানাইঘাট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপরে ১৩ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেখানে পানি প্রবাহিত হচ্ছিল ১৩ দশমিক ১৯ সেন্টিমিটার দিয়ে।
কুশিয়ারা নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে পানি বুধবার সন্ধ্যা থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত একই (৯ দশমিক ৯৯ সেন্টিমিটার) রয়েছে। সেখানে বিপৎসীমা ৯ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার। কুশিয়ারার অন্যান্য পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার নিচে রয়েছে।
সিলেটের সীমান্ত নদী হিসেবে পরিচিত কানাইঘাটের লোভা নদীর পানি কমছে। বুধবার সন্ধ্যায় ১৪ দশমিক ৬৮ সেন্টিমিটার থেকে কমে বৃহস্পতিবার দুপুরে ১৪ দশমিক ২৯ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হয়। কমছে সারী নদীর পানি। জৈন্তাপুরের সারীঘাট পয়েন্টে সারীর পানি ১১ দশমিক ৭৪ সেন্টিমিটার থেকে নেমে বৃহস্পতিবার দুপুরে ১১ দশমিক ২৪ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

 

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ধলাই নদের ইসলামপুর পয়েন্টে পানি বুধবার সন্ধ্যায় ১১ দশমিক ৫৮ সেন্টিমিটার থেকে নেমে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার পরিমাপে ১১ দশমিক ২১ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

 

পাউবোর নদ-নদী পর্যবেক্ষকেরা বলেছেন, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সীমান্ত নদীর পানি কমায় প্রধান দুই নদী সুরমা-কুশিয়ারার পানিও কমছে। এতে করে সিলেটের বন্যাকবলিত পাঁচ উপজেলা ছাড়াও নদ-নদী অববাহিকা এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।